ওয়েবসাইট খোলার নিয়ম

সময় টা এমনই হয়ে গেছে এখন আমাদের একটা ওয়েবসাইট খোলার নিয়ম শেখার জন্য, অপর আরেকটি ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট পড়তে হচ্ছে। বর্তমান সময়ে, একটা ছোট ব্যবসা থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি সরকারি-বেসরকারি  প্রতিষ্ঠান, স্কুল-কলেজ,ইউনিভার্সিটির কিংবা ব্যাক্তিগত নামের ওয়েবসাইট দরকার হচ্ছে। কেননা ইন্টারনেট সহজ লোভ্য হওয়ায়, মানুষ সব ইনফরমেশন ইন্টারনেটেই চায়। আর ইন্টারনেটে আপনি আপনার ইনফরমেশন দিতে পারবেন আপনার অনলাইন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। চলুন শুরু করা যাক ওয়েবসাইট কিভাবে তৈরী করতে হয় এবং তার নিয়মসমুহ।

ওয়েবসাইট তৈরি করতে কি কি লাগে

আমরা যেহুতু, নতুন ওয়েবসাইট খোলার নিয়ম শিখবো তাই আমাদের জেনে নিতে হবে আমাদের কি কি লাগবে। প্রথমত, আপনার যদি ওয়েবসাইট বিষয়ে কোন আইডিয়া না থাকে তাহলে আমাদের পূর্বের পোষ্ট ওয়েবসাইট – কীভাবে কাজ করে ? (পূর্ণাঙ্গ আইডিয়া) এটা একটু পড়ে নিন। আর যদি আইডিয়া থাকে তাহলে দরকার নেই। তাহলে এখন ধরা যায় ওয়েবসাইট কি, বা কীভাবে কাজ করে এই আইডিয়া গুলো আপনার মাথায় আছে।

ওয়েবসাইট ডিজাইন (WEBSITE DESIGN)

এবার আপনি যে কাজটির জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন, সেই কাজ রিলেটেড একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হবে। এখন কেমন হবে সেই ডিজাইন, সেইটার আইডিয়া আপনার মাথায়  থাকতেও পারে আবার নাও থাকতে পারে। যদি আপনি ডিজাইন সম্পর্কে আইডিয়া চান, তাহলে আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী বা আপনার কাজ রিলেটেড যে ওয়েবসাইট গুলো আছে সেগুলো ভিজিট করে আইডিয়া নিন। কিছু টেমপ্লেট দেখুন আপনার কাজ রিলেটেড । অথবা আপনি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের সহযোগিতা নিতে পারেন।  গ্রাফিক্স ডিজাইনার আপনাকে হয়তো আপনাকে আপনার কাজ রিলেটেড কিছু টেমপ্লেট দেখাবে অথবা আপনি তাকে আইডিয়া দিলে সে সেটা ভিজুয়ালি করে দেখাবে। একপর্যায় আপনি আপনার ডিজাইনার এর থেকে একটা ডিজাইন কপি নিয়ে নিবেন।  হতে পারে সেটা পিএসডি বা একটা ছবি।

ওয়েবসাইট  তৈরি

ডিজাইন রেডি করার পর এটাকে আপনার ওয়েব ফাইলে রুপান্তর হবে, সেটা করবেন একজন ওয়েব ডিজাইনার এবং ওয়েব ডেভলপার। আপনার ডিজাইন কে বাস্তব ওয়েবসাইটে রুপ দেবেন তিনি। এরপর আপনার ডেভলপার সাইট টি লাইভ বা অনলাইন করার জন্য আপনার কাছে  ডোমেইন/হোস্টিং এক্সেস চাইবে। 

ডোমেইন (DOMAIN)

যেহুতু আপনার কাছে এখন আপনার ওয়েবসাইটের সবকিছুই অফলাইনে রেডি করা আছে, তাই এখন আপনার সেটাকে অনলাইন নিতে অবশ্যই একটা ডোমেইন কিনতে হবে। ডোমেইন কি ? ডোমেইন হচ্ছে সেইনাম বা লিংক যেটা ব্রাউজারে দিলে আপনার ওয়েবসাইট সরাসরি দেখতে পাওয়া যাবে। তো আপনি যেকোনো ডোমেইন প্রোভাইডারের কাছ থেকে ডোমেইন কিনে নিতে পারেন। ডোমেইন কেনার পর আপনাকে ডোমেইন টিকে একটি হোস্টিং এর সাথে কানেক্ট করতে হবে

হোস্টিং (HOSTING) 

আপনার হোস্টিং হচ্ছে সেই জায়গা, যেখান থেকে আপনার ডোমেইন ওয়েবসাইটি লোড করে দেখাবে। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটের সকল তথ্য,ফাইল আপনার হোস্টিং স্সেসে থাকবে। হোস্টিং কে সার্ভার ও বলা হয়।

এবার আপনি ডোমেইন/হোস্টিং একসেস আপনার ডেভলপার কে দিলেই, তিনি আপনার ওয়েবসাইট লাইভ করে দিবেন। আপনার ওয়েবসাইট এখন ভিজিটরের জন্য রেডি । আশা করি ওয়েবসাইট খোলার নিয়ম সম্পর্কে আপনি জানতে পেরেছেন, কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে করতে পারেন।

Spread the love

Leave a Comment